logo

ভালোবাসা দিবসে স্ত্রীকে ভালোবাসা জানানোর বিধান

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক
হালাল-হারাম
২ সপ্তাহ আগে
২৬

উত্তর : মহান আল্লাহ যাদের প্রতি ভালোবাসা রাখার অনুমতি দিয়েছেন, তাদের কাউকে ভালোবাসলে তার নিকট ভালোবাসা প্রকাশ করা বৈধ, বরং উত্তম। নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

إِذَا أَحَبَّ أَحَدُكُمْ أَخَاهُ فَلْيُعْلِمْهُ أَنَّهُ يُحِبُّهُ.

অর্থ : তোমাদের কেউ তার ভাইকে ভালোবাসলে সে যেন তাকে জানিয়ে দেয় যে, সে তাকে ভালোবাসে।

[মুসনাদে আহমাদ : ১৭১৭১]

 
আরেক হাদিসে আনাস ইবনে মালেক রা. থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, তিনি বলেন, আমি নবী সা.-এর কাছে বসা ছিলাম। এমন সময় এক ব্যক্তি সেদিক দিয়ে অতিক্রম করল। তখন উপস্থিত লোকদের একজন বলল, হে আল্লাহর রাসুল, আমি এ ব্যক্তিকে ভালোবাসি। রাসূল সা. বললেন,

هَلْ أَعْلَمْتَهُ ذَلِكَ؟

অর্থ : তুমি কি তাকে তা জানিয়েছ? সে বলল, না। রাসূল সা. বললেন,

قُمْ فَأَعْلِمْهُ

অর্থ : যাও, তাকে জানিয়ে দাও। [মুসনাদে আহমাদ : ১২৪৩০]
খোদ নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকেও কোনো কোনো সাহাবির প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করার কথা বর্ণিত হয়েছে। মুয়ায ইবনে জাবাল রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সা. আমার হাত ধরে বললেন, হে মুয়ায! আমি বললাম, লাব্বাইক ইয়া রাসূলাল্লাহ। রাসূল সা. বললেন, আমি তোমাকে ভালোবাসি। তখন আমি বললাম, আল্লাহর শপথ, আমিও আপনাকে ভালোবাসি। [সুনানু আবি দাউদ : ১৫২২]
অতএব, যাদের সঙ্গে ভালোবাসা রাখা শরিয়ত-অনুমোদিত, তাদের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করা বৈধ; বরং উত্তম। আর নিঃসন্দেহে ভালোবাসা প্রকাশের অন্যতম ক্ষেত্র হলো স্ত্রী। তাই স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করাও কাম্য। এ ভালোবাসা প্রকাশের জন্য কোনো দিনক্ষণ নির্ধারিত নেই। বছরের যে কোনো সময়ই ভালোবাসা প্রকাশ করা যাবে। 
তবে ভালোবাসা প্রকাশের জন্য ১৪ ই ফেব্রুয়ারিকে নির্ধারণ করার সুযোগ নেই। কারণ, ১৪ ই ফেব্রুয়ারি অশ্লীলতা ও বেহায়াপনাময় একটি দিন। এ দিনে স্ত্রীকে উইশ করা সমাজে অশ্লীলতা প্রতিষ্ঠা করা ও বেহায়াপনাকে প্রমোট করার নামান্তর। আর এ বিষয়ে কঠিন সতর্কবার্তা উচ্চারিত হয়েছে। আল্লাহ তাআলা বলেন,

اِنَّ الَّذِیۡنَ یُحِبُّوۡنَ اَنۡ تَشِیۡعَ الۡفَاحِشَۃُ فِی الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡا لَهُمۡ عَذَابٌ اَلِیۡمٌ ۙ فِی الدُّنۡیَا وَ الۡاٰخِرَۃِ

অর্থ : যারা পছন্দ করে যে, মুমিনদের মধ্যে অশ্লীলতার প্রসার লাভ করুক, তাদের জন্য দুনিয়া ও আখেরাতে রয়েছে যন্ত্রণাময় শাস্তি। 
[সুরা নূর : ১৯]
এ ছাড়া ১৪ ই ফেব্রুয়ারি স্ত্রীকে উইশ করার দ্বারা পাপাচারে গা-ভাসানো ও অশ্লীলতার ধ্বজাধারী সম্প্রদায়ের সঙ্গে সাংস্কৃতিক সাদৃশ্য ধারণও অপরিহার্য হয়ে পড়ে, যা কোনো মুমিনের জন্য জায়েজ নয়। রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

مَنْ تَشَبَّهَ بِقَوْمٍ فَهُوَ مِنْهُمْ

অর্থ : যে ব্যক্তি কোনো জাতির সাদৃশ্য গ্রহণ করল, সে সেই জাতির অন্তর্ভুক্ত গণ্য হবে।
 [সুনান আবি দাউদ : ৪০৩১]

মোটকথা স্ত্রীকে ভালোবাসা এবং তার প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করা প্রশংসনীয়। কিন্তু ১৪ ই ফেব্রুয়ারি উইশ করার দ্বারা যেহেতু পরোক্ষভাবে অশ্লীলতা ও বেহায়াপনাকে প্রমোট করা হয়, তাই ১৪ ই ফেব্রুয়ারি স্ত্রীকে উইশ করা যাবে না। 
সূত্র :  সুনানু আবি দাউদ,  ৪০৩১; ইহয়াউ উলুমিদ দ্বীন, ২/২৭২;  তাবয়িনুল হাকায়িক,  ৬/২২৮;  আল কাওকাবুল ওয়াহহাজ, ২৩/১৮১;  রাদ্দুল মুহতার, ৬/৩৭২

একই প্রশ্ন আপনার বন্ধু-প্রিয়জনদের থাকতে পারে,
আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে উত্তরটি শেয়ার করে আপনিও সদকায়ে জারিয়ায় অংশ নিন

বিভাগসমূহ

ঈমান ও আকায়েদ

১১৯ টি প্রশ্ন আছে

কুরআনুল কারীম

৬০ টি প্রশ্ন আছে

হাদীস ও সুন্নাহ

১২১ টি প্রশ্ন আছে

পবিত্রতা ও সালাত

২০০ টি প্রশ্ন আছে

যাকাত ও সাদাকাহ

২১ টি প্রশ্ন আছে

সিয়াম/রামাদান

৭৯ টি প্রশ্ন আছে

হাজ্জ ও উমরাহ

২৭ টি প্রশ্ন আছে

কুরবানী ও আকীকা

৫৬ টি প্রশ্ন আছে

ব্যবসা-বাণিজ্য ও লেনদেন

৪৭ টি প্রশ্ন আছে

আখলাক ও ইসলামী শিষ্টাচার

১২৭ টি প্রশ্ন আছে

হালাল-হারাম

১৭৫ টি প্রশ্ন আছে

বিবাহ ও তালাক

৭৬ টি প্রশ্ন আছে

ফেসবুক পাতা

নিয়মিত ইসলামিক তথ্য পেতে আমাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে সংযুক্ত থাকুন