logo

ইনবক্সে নন-মাহরাম নারীর সাথে কথা বলা কখন জায়েজ, কখন নাজায়েজ?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক
হালাল-হারামআধুনিক মাসায়িলনারী
৬ মাস আগে
১০৮৩

উত্তর: নারী ও পুরুষগণ পরস্পর কোনো প্রয়োজনীয় কথা বলতে চাইলে যথাসম্ভব এমন জায়গায় বলবেন, যেখানে ফিতনার আশংকা না হয়। যেমন: কারো উপস্থিতিতে কথা বলা কিংবা কোনো গ্রুপে মেসেজ আদান-প্রদান করা।

একান্ত নির্জনতাকে রাসুল সা. ফিতনার কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন: عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ، عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: لَا ‌يَخْلُوَنَّ ‌رَجُلٌ ‌بِامْرَأَةٍ إِلَّا مَعَ ذِي مَحْرَمٍ- ‘মাহরামের উপস্থিতি ছাড়া কোনো নর-নারী যেন একান্তে মিলিত না হয় ।’ (বুখারি, হা/৫২৩৩; মুসলিম, হা/১৩৪১)

তবে বিশেষ প্রয়োজনে ক্রয়- বিক্রয়ের মতো বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় যদি কথা বলতে হয়, সেক্ষেত্রে ফিতনার কথা মাথায় রেখে সতর্কতার সাথে সংশ্লিষ্ট প্রয়োজনীয় কথা বলা যেতে পারে। এর বাইরে অতিরিক্ত আলাপচারিতা বৈধ হবে না। আজকাল অনলাইনে নারী- পুরুষের ‘হাই-হ্যালো, কি করেন, কি খেয়েছেন’ টাইপ কথোপকথন এবং পরিচিতির নামে অহেতুক আলাপচারিতা কেবল যিনার পথই উন্মোচন করছে, যা অবশ্য-পরিত্যাজ্য। কুরআনে আল্লাহ তা‘আলা বলেন: وَلَا تَقْرَبُوا الزِّنَا ۖ إِنَّهُ كَانَ فَاحِشَةً وَسَاءَ سَبِيلًا- ‘আর তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না! নিশ্চয়ই তা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ।’ -সুরা ইসরা, আয়াত: ৩২

একই প্রশ্ন আপনার বন্ধু-প্রিয়জনদের থাকতে পারে,
আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে উত্তরটি শেয়ার করে আপনিও সদকায়ে জারিয়ায় অংশ নিন

বিভাগসমূহ

ঈমান ও আকায়েদ

১১৯ টি প্রশ্ন আছে

কুরআনুল কারীম

৬০ টি প্রশ্ন আছে

হাদীস ও সুন্নাহ

১২১ টি প্রশ্ন আছে

পবিত্রতা ও সালাত

১৯৭ টি প্রশ্ন আছে

যাকাত ও সাদাকাহ

২০ টি প্রশ্ন আছে

সিয়াম/রামাদান

৭৯ টি প্রশ্ন আছে

হাজ্জ ও উমরাহ

২৭ টি প্রশ্ন আছে

কুরবানী ও আকীকা

৫৫ টি প্রশ্ন আছে

ব্যবসা-বাণিজ্য ও লেনদেন

৪৬ টি প্রশ্ন আছে

আখলাক ও ইসলামী শিষ্টাচার

১২৩ টি প্রশ্ন আছে

হালাল-হারাম

১৭২ টি প্রশ্ন আছে

বিবাহ ও তালাক

৭৬ টি প্রশ্ন আছে

ফেসবুক পাতা

নিয়মিত ইসলামিক তথ্য পেতে আমাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে সংযুক্ত থাকুন